ধর্মনিরপেক্ষতা ও রাষ্ট্রধর্ম নিয়ে বিপাকে বিশেষ কমিটি

Posted: অগাষ্ট 25, 2010 in Uncategorized

উচ্চ আদালতের সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী সংক্রান্ত রায় বাস্তবায়ন করা হলে মূলনীতিতে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’র কথা পুনর্বহাল হবে, অন্যদিকে অষ্টম সংশোধনী অনুযায়ী ‘রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম’ সংবিধানে থেকে যাবে_এ নিয়েই বিপাকে পড়েছে সংবিধান সংশোধনে গঠিত বিশেষ কমিটি। এ ছাড়া পঞ্চম সংশোধনী বাতিল করে হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের রায়ের মধ্যে বেশ কিছু অসংগতি খুঁজে পেয়েছে বিশেষ কমিটি। এসব স্পর্শকাতর অসংগতি নিয়ে আগামী ৪ সেপ্টেম্বর গোপন বৈঠক করবে কমিটি। ওই বৈঠকে কেউ কোনো ধরনের নোট নিতে পারবেন না। কমিটির সদস্যরা ছাড়া অন্য কারো সঙ্গে আলোচনা পর্যন্ত করা যাবে না। গতকাল জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত কমিটির বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে বিশেষ সূত্র জানিয়েছে। সূত্রমতে, সদস্যরা হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের রায়ের মধ্যে অসংগতি নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত করেন। সে সময় একজন সদস্য বলেন, সুপ্রিম কোর্টের রায় অনুযায়ী সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম

ইসলাম রাখার সুযোগ নেই। সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষতা সংক্রান্ত অনুচ্ছেদ ১২ সনি্নবেশ করা ছাড়া আদালতের রায় বাস্তবায়নের পথ খোলা নেই। এ পরিপ্রেক্ষিতে হাসানুল হক ইনু, রাশেদ খান মেননসহ কয়েকজন সদস্য বলেন, আদালতের রায় অনুযায়ী বিষয়গুলো দেখতে হবে। এ নিয়ে সদস্যদের মধ্যে কিছুটা বিতর্কের সৃষ্টি হলে কমিটির চেয়ারম্যান ও কো-চেয়ারম্যান উচ্চ আদালতের রায়ের অসংগতিগুলো নিয়ে পৃথক বৈঠক করার সিদ্ধান্ত নেন। সে সময় বলা হয়, বিশেষ কমিটির ১৫ সদস্য এবং আইনমন্ত্রী ও ল কমিশনের চেয়ারম্যানসহ ১৭ সদস্যকে নিয়ে গোপন বৈঠকটি হবে ক্যামেরা বৈঠক। সেখানে এসব অসংগতি নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ এবং বিতর্কও হতে পারে। সদস্যরা যদি শেষ পর্যন্ত কোনো সমাধানে পেঁৗছাতে পারেন, তাহলেই বিষয়টি নিয়ে অন্যদের সঙ্গে আলোচনা করা হবে।
সূত্র জানায়, বিগত বৈঠকে উপস্থাপিত ল’ কমিশন, পার্লামেন্টারি স্টাডি গ্রুপ, আইন মন্ত্রণালয়ের পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন, বিশেষ কমিটির চারটি প্রতিবেদন যাচাই-বাছাই করে কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট রহমত আলী ও হাসানুল হক ইনু দুটি প্রতিবেদন দিয়েছেন। প্রত্যেক সদস্যকে প্রতিবেদন দুটি দেওয়া হয়েছে এবং পরবর্তী বৈঠকে এগুলো নিয়ে আলোচনার প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। একাধিক সদস্য ল’ কমিশনের প্রতিবেদনের তুলনায় স্টাডি গ্রুপের প্রতিবেদনের যুক্তি ও বিশ্লেষণকে সময়োপযোগী বলেছেন। এর আলোকে আলোচনা করার প্রস্তাবও দেন অনেকে। তবে কোনো বিষয়েই গতকাল চূড়ান্ত আলোচনা হয়নি বলে জানা গেছে। এ ছাড়া আদালতের রায় অনুযায়ী গেজেট করলেই যথেষ্ট, নাকি সংসদে সংবিধান সংশোধন বিল এনে সংশোধনী আনতে হবে_এ নিয়েও গতকালের বৈঠকে হালকা বিতর্ক হয়েছে বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। বিশেষ কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বৈঠকে বলেন, অনেক বিশেষজ্ঞ বলছেন, আদালতের রায় অনুযায়ী গেজেট প্রকাশ করে সংবিধান সংশোধন করা সম্ভব। এ বিষয়ে তিনি প্রশ্ন উত্থাপন করলে ল’ কমিশনের চেয়ারম্যান বিচারপতি আবদুর রশীদ বলেন, সংবিধান সংশোধনের এখতিয়ার আদালতের নেই। পরে এ বিষয়ে আর আলোচনা হয়নি। বৈঠক শেষে কমিটির কো-চেয়ারম্যান সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত সংসদের মিডিয়া সেন্টারে অনুষ্ঠিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে বিশেষ কমিটি চূড়ান্ত সুপারিশ পেশ করবে। আগামী ৪, ৫ ও ৬ সেপ্টেম্বর টানা তিনটি বৈঠক করে এ বিষয়ক প্রস্তাব চূড়ান্ত করা হবে। তবে ৪ সেপ্টেম্বরে হবে বিশেষ বৈঠক। ওই দিন কমিটির সদস্য ছাড়া অন্য কেউ উপস্থিত থাকতে পারবেন না বলেও জানান তিনি। এর আগে সকাল সোয়া ১১টার দিকে সংসদ ভবনের ক্যাবিনেট কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী। আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদসহ কমিটির সদস্যরা এতে উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গত, আদালতের রায়ের আলোকে সংবিধান সংশোধনের লক্ষ্যে গত ২১ জুলাই জাতীয় সংসদে ১৫ সদস্যের এ বিশেষ কমিটি গঠন করা হয়। প্রধান বিরোধী দল বিএনপিকে কমিটিতে থাকার আহ্বান জানানো হলেও তারা সরকারের প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি। পরে সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীকে চেয়ারম্যান ও সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে কো-চেয়ারম্যান করে কমিটি চূড়ান্ত করে সরকার। গঠনের পর কমিটি গত ২৯ জুলাই প্রথম ও ৮ আগস্ট দ্বিতীয় বৈঠক করে। এর আগে ৫ আগস্ট আইন মন্ত্রণালয় ও আইন কমিশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করে বিশেষ কমিটি।

সংগ্রহ- কালের কন্ঠ ২৫.০৮.১০

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s