Archive for সেপ্টেম্বর 8, 2010

উত্তর-পশ্চিম শস্য বহুমুখীকরণ প্রকল্প (এনসিডিপি) জোড়াতালি দিয়ে শেষ করেছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। প্রকল্পের ৫০ কোটি টাকা খরচ করে ৭৬টি বাজার তৈরির পাশাপাশি পণ্য পরিবহনে আটটি ‘রিফার ভ্যান’ কেনা হয়েছিল। বেশির ভাগ বাজার কৃষকের কাজে লাগেনি, ভ্যান পড়ে আছে রাজধানীতে। এসব ব্যাপারে সিদ্ধান্ত না নিয়েই একই ধরনের নতুন প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমের ১৮টি ও উত্তর-পশ্চিমের নয়টি জেলায় নতুন প্রকল্পের কাজ এ বছরের শেষ নাগাদ শুরু হবে। প্রায় ৩০০ কোটি টাকার এই প্রকল্পে আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। কৃষিসচিব সি কিউ কে মুশতাক আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, এনসিডিপি উচ্চমূল্যের শাকসবজি, ফলমূল ও অন্যান্য শস্য উৎপাদনে সফল প্রকল্প। তবে প্রকল্পে নতুন বাজারব্যবস্থা চালুর যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, তা কাজে আসেনি। শেষ হওয়া প্রকল্পের সুযোগ-সুবিধা কৃষকেরা নিতে পারেন কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সরকারের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট সরকারের সময় নেওয়া ওই প্রকল্পটি (২০০১-২০০৮) মূল্যায়ন করেছে। মূল্যায়ন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কৃষকেরা উচ্চমূল্যের ফসল উৎপাদন করলেও বাজারব্যবস্থায় যথেষ্ট ত্রুটি ছিল। ওই প্রকল্পের আওতায় ১৬টি জেলায় টমেটো, বেগুন, পেঁপে, গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ, মুগ ডাল, সীম, আদা, কলাসহ ৩৩টি ফসল উৎপাদনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। প্রকল্প বাস্তবায়নের আগে ওই অঞ্চলে এসব ফসলের উৎপাদন ছিল ১৪ হাজার ৪৬৯ মেট্রিক টন। প্রকল্প শেষে উৎপাদন বেড়ে দাঁড়ায় ৬১ হাজার মেট্রিক টন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উৎপাদন বাড়লেও উপজেলাপর্যায়ে ২০ জনের যে কৃষি বিপণন দল (ফারমার্স মার্কেটিং গ্রুপ) গঠন করা হয় তা সক্রিয় ছিল না। বাজারগুলো প্রকল্প শেষে চালু (বিস্তারিত…)

Advertisements