প্রয়োজন মানসিকতা পরিবর্তনের……

Posted: অক্টোবর 5, 2010 in Uncategorized

যা কিছু অন্যায়, যা কিছু অবৈধ, যা কিছু অপরাধ, যা কিছু অন্যায্য, যা কিছু অসত্য তাই যেন আমাদের কাছে ন্যায়, বৈধ, নিরাপরাধ, ন্যায্য এবং সত্য হয়ে গেছে। সমাজের নীচ থেকে যতই উপরের দিকে যাওয়া যাবে ততই এর মাত্রা বৃদ্ধি পাবে। ন্যায়-বৈধ-নিরাপরাধ-ন্যায্য-সত্য  কথাগুলো আজকাল শুধুই কথার কথা। যদিও আমার বিশ্বাস সমাজে এখনো সত্য-ন্যায়-ন্যায্যতার পক্ষের মানুষগুলোর সংখ্যাই বেশী। কিন্তু সংখ্যায় বেশী হলে হবে কি, সেই বেশী সংখ্যক মানুষগুলোর মানসিকতাও মুষ্টিমেয় কিছু মানুষের হীন মানসিকতার অন্তরালে ঢাকা পড়ে যায়। কেননা, হীন মানসিকতার এই মানুষগুলো যে সংঘবদ্ধ। তাদেরকে চাইলেই যে কেউ আঘাত করতে পারে না।

গত সোমবার সন্ধায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সচিব সুনীল কান্তি বোসের মেয়ের বিয়ে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে সম্পন্ন হয়েছে। বেশ ভালো কথা সচিব মহোদয় মেয়ের বিয়ে দিবেন এতে তো দোষের কিছু নাই। মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠান সাধ্যমত (যদিও বাংলাদেশের কোন মন্ত্রালয়ের সচিব বলে কথা, তাদের কাছে অসাধ্য বলে কিছু নাই) অনেক বড়সড় করে করবেন তাতেও দোষের কিছু নাই। পাঠক তাহলে ভাবছেন দোষটা কি? দোষ একটা করেছেন মাননীয় সচিব মহোদয়, আর সেটা হলো ঊনি মেয়ের বিয়েতে ব্যবহারের জন্য রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান থেকে দুই দিনের জন্য প্রায় ডজেন খানেক গাড়ী নিয়েছেন। শুধু তাই নয় এই বিশাল গাড়ী বহরের জ্বালানি খরচও ঊনি ব্যয় করবেন না। সেটা ব্যয় হবে রাষ্ট্রীয়  কোষাগার থেকে। পাঠক এবার নিশ্চয় বলবেন, এ আর এমন কি দোষ!

হ্যাঁ পাঠক, আপনাদের মত আমিও বলি এ আর এমন কি দোষ! রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান থেকে, রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে কত শত-হাজার কোটি টাকা চুরি (চুরি কথাটা বড় বেমানান হয়ে যায়, কমিশন বললে মনে হয় একটু ভালো শোনাত কিন্তু দুঃখিত সেটা বলতে পারলাম না) হয়ে যাচ্ছে! আর এ তো মাত্র দুই দিনের ব্যবহারের জন্য কয়েকটা গাড়ী নিয়েছেন, তাও আবার মেয়ের বিয়ের জন্য!

মাননীয় সচিব মহোদয়, আপনারা প্রজাতন্ত্রের উচু দরের কর্মকর্তা হওয়ার সুবাদে প্রজাতন্ত্রের এমন কোন সুবিধা নেই, যা আপনারা ভোগ করেন না? তারপরও কেন আপনারা এমন হীন মানসিকতার পরিচয় দেন, বলতে পারবেন? হ্যাঁ আপনি বলতে পারেন, গাড়ীগুলো সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠাগুলো আপনাকে ভালোবেসে দিয়েছেন! কিন্তু এটা কি ভালোবেসে দিয়েছেন! না আপনাকে উপঢৌকন হিসেবে দিয়েছেন! সেটা কি একবার ভেবে দেখেছেন? এর বিনিময়ে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা যে আপনার কাছে সুবিধা চাইতে পারেন সেটা কি ভাবনায় আসেনি? আর ভালোবেসে দিলেই আপনি সেই অবৈধ সুবিধা নেবেন কেন?

সুনীল কান্তি বোসের মত সরকারী আমলা-কামলারা অবৈধ সুবিধা নেবেনই তো, কারন অবৈধ সুবিধা নেয়া এবং অবৈধ সুবিধা দেয়ার মত বিষয়গুলো তো ঊনাদের অস্তি-মজ্জার মধ্যে ঢুকে গেছে। সেটা কি আর চাইলেই এতো সহজে ঝেড়ে ফেলা যায়!

ধুম-ধাম করে মেয়ের বিয়ে দেয়া, অনেক টাকা খরচ করা দেখে কেউ কি বলতে পারবে যে সচিব মহোদয়ের টাকার অভাব আছে! ঊনি এতো টাকা খরচ করে মেয়ের বিয়ে দিতে পারেন আর গাড়ী ভাড়া নিতে পারেন না, সেটা কেমন কথা! নাকি গাড়ী ভাড়া নেয়ার টাকাই শুধু ঊনার কম পড়েছিল! যদি কমই পড়েছিল তাহলে গাড়ীর বহর কমিয়ে দিলেই পারতেন। তা না করে ঊনি অবৈধ সুবিধা নিতে গেলেন কেন? আসলে টাকা-পয়সার সমস্যা এখানে কোন সমস্যা নয়, সমস্যা যদি হয় সেটা  সুনীল কান্তি বোসের মানসিকতার সমস্যা। সুনীল কান্তি বোসদের মধ্যে যে অবৈধ সুবিধা নেয়ার হীন মানসিকতা কাজ করে যদি সেটা কোনভাবে পরিবর্তন  করা যেতো তাহলে হয়তো বোসদের নিজ পরিবার সহ গোটা সমাজের চিত্রটা পালটে যেতো! আসুন “নিজেদের হীন মানসিকতাকে পরিবর্তন করি, নতুন একটা সমাজ গড়ি।“

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s