Archive for মে, 2011

# নিশাত জাহান রাণা, কনক বর্মন, অদিতি ফাল্গুনী #

হাসপাতালের বিছানায় লিমন

গত ১৭ই মে মঙ্গলবার বুদ্ধ পূর্ণিমার সরকারী ছুটির সুবাদে আমরা, বাংলাদেশের খুব সাধারণ কয়েকজন নাগরিক ও ইন্টারনেটে ফেসবুক নির্ভর গ্রুপ ‘লিমনের জন্য, জীবনের জন্য’-এর জনা তিন/চার জন সদস্য ঢাকার শ্যামলীস্থ’ পঙ্গু হাসপাতালে লিমনকে দেখতে যাই। তখন বিকাল সাড়ে পাঁচটা। লিফটে লিফটম্যান যখন বলেন যে লিমনকে সাভারে সিআরপি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, তখন এক ধরণের নৈরাশ্য আমাদের ওপর ভর করলেও আমরা একবার লিমনের বেড পর্যন্ত যাবার সিদ্ধান্ত নিই।

পঙ্গু হাসপাতালের তিন তলার করিডোরে গিয়ে একে-ওকে শুধাতেই কয়েকজন আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল লিমনের ওয়ার্ড এবং তাদের কাছ থেকেই জানা গেল যে লিমন হাসপাতালে আছে। সাভারে তাকে গতকাল যেতে হয়েছিল। কিনত্ত, গতকাল সন্ধ্যায়ই সে আবার ফিরে এসেছে। লিমনের ওয়ার্ডে ঢুকবার মুখেই দাড়িঅলা এক অনতি (বিস্তারিত…)

গতকাল ফার্মগেট থেকে শাহবাগ যাবো বলে বিআরটিসি’র টিকেট কাটার জন্য কাউন্টারে হাত বাড়াতেই দেখি কাউন্টারের গায়ে বর্ধিত মূল্য তালিকা লাগানো ‘শাহবাগ-১০টাকা’ গুলিস্তান-১০টাকা’ ‘মতিঝিল-১০টাকা’। কাউন্টারের ভিতরে থাকা ব্যক্তিকে জিজ্ঞেস করলাম- কি ব্যাপার ভাই সব দেখতেছি ১০টাকা, ঘটনাটা কি বলেন তো-সর্বনিন্ম ভাড়া ৫টাকা না(এই ৫টাকার খবরটা গতকালই পত্রিকা থেকে জেনেছিলাম)? ভিতরে থাকা দুইজনের প্রথম ব্যক্তি বলে উঠলো-ভাই ৫টাকা ঠিক আছে কিন্তু এখানে সব ১০টাকা। আমি বললাম কেন কেন? এবার ভিতরে থাকা দ্বিতীয় ব্যক্তি কি যেন মনে করে(হয়তো কোন ঝামেলা এড়াতে চাইলো)প্রথম ব্যক্তিকে বললো-ভাইয়ের কাছে ৫টাকা নাও। আমি টাকা না দিয়ে কাউন্টার থেকে হাত বের করতেই দ্বিতীয় ব্যক্তি আমার দিকে তাকিয়ে-ভাই দেন ৫টাকাই দেন। ততক্ষনে গাড়ী এসে দাঁড়িয়েছে। ১০টাকাই এগিয়ে দিলাম, ৫টাকা ফিরিয়ে দিল কিন্তু কোন টিকেট দিল না। জিজ্ঞেস করাতেই ঝটপট উত্তর-ভাই লাগবে না যান। কেন, লাগবে না কেন? দেন টিকেট দেন। উত্তর-ভাই ৫টাকার টিকেট নাই তো! আর কথা বাড়ানো সম্ভব হয় নি কারন গাড়ী ছেড়ে দিয়েছে, দৌড় দিয়ে উঠলাম। অবাক হলাম এই ব্যাপারটা নিয়ে কাউকে কোন কথা বলতে না দেখে! সবাই দিব্বি ১০টাকা দিয়ে টিকেট কাটলো। গাড়িতে উঠার পর ভেবে দেখলাম, সর্বনিন্ম ভাড়া যে ৫টাকা হয়তো সেটাই কেউ জানে না! কিংবা জানলেও সবাই ঝামেলা এড়াতে ৫টাকার টিকেট ১০টাকায় কাটে। কি বলা যাবে এটাকে, অসচেতনতা না অসহায়ত্ব??

গত ১৩ মে শুক্রবার সকাল ১১.০০টায় শাহবাগস্থ জাতীয় জাদুঘরের সামনে ‘লিমনের জন্য, জীবনের জন্য’ নামক ফেসবুক কেন্দ্রীক এক সাধারন নাগরিক মঞ্চের উদ্যোগে  সাম্প্রতিক ‘র‌্যাবে’র গুলিতে পঙ্গু কিশোর লিমনের উপর থেকে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, তার সুচিকিৎসা এবং পড়াশুনার খরচ চালানোর জন্য সরকারের কাছে দাবীর পাশাপাশি ‘র‌্যাব’ কর্তৃক এ পর্যন্ত সংঘটিত সকল বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের সুঠু তদন্ত ও বিচারের দাবীতে ‘মানববন্ধন’ অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো।

কবি-শিল্পী-বুদ্ধিজীবি-লেখক-প্রকাশক-সমাজ সংগঠকসহ দেশের সর্বস্তরের নাগরিকের (বিস্তারিত…)

প্রতিবছর এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল বের হওয়ার পর আমরা পত্র-পত্রিকার মাধ্যমে এমন কিছু অদম্য মেধাবীর কথা জানতে পারি যা আমাদের বেঁচে থাকার অনুপ্রেরনা যোগায়। সারা দেশের সংখ্যার তুলনায় পত্রিকায় প্রকাশিত সংখ্যা হয়তো  খুবই নগন্য। তারপরেও, এই সংখ্যা দিয়েই আমরা খুব সহজেই অনুধাবন করতে পারি সারা দেশের গ্রাম থেকে গ্রামন্তরের অসংখ্য মেধাবীর সংগ্রামী জীবন সম্পর্কে। এ বছর অর্থাৎ ২০১১ এর এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল বের হওয়ার পরেও এমনি কিছু সংগ্রামী মেধাবী মূখ সম্পর্কে আমরা জানতে পেরেছি পত্রিকার পাতা থেকে। যারা জন্মের পর থেকেই প্রতিটি মূহুর্ত লড়াই করে চলেছে জীবনের সাথে তবু কখনোও হাল ছাড়েনি পড়াশুনার। পিছু হটেনি কেউ, প্রতি মূহুর্তের বেঁচে থাকার লড়াই থেকে। রিক্সা চালিয়ে, দিনমজুরের কাজ করে, ছাত্র পড়িয়ে, নির্মান শ্রমিকের কাজ করে, খালে-বিলে মাছ ধরে, অন্যের বাড়ীতে কাজ করে, বুট-বাদাম বিক্রি করে  কখনো দুবেলা খেয়ে কখনোবা একবেলা আবার কখনোবা না খেয়ে তারা বেঁচে থাকার লড়াই করেছে, চালিয়ে গেছে পড়াশুনা। এতো কিছুর পরেও তারা মনোবল হারায়নি কখনো। (বিস্তারিত…)

নিশাত জাহান রানা, কনক বর্মণ, অদিতি ফাল্গুনী, আহমেদ জাভেদ রনি, তুহিন দাস
তন্ময় হ্যারিস, শুভ্রনীল সাগর, বাকি বিল্লাহ, মফিজুল হক, আখতারুজ্জামান আজাদ মনোয়ার মোনা, নূরুল হক, নূরুজ্জামান মানিক

কথায় বলে, যে ঘুমিয়ে থাকে তাকে জাগিয়ে তোলা যায় কিন্তু যে জেগে ঘুমায়, তাকে জাগিয়ে তোলা সত্যিই খুব কঠিন। যদিও হাইকোর্ট থেকে লিমনের জামিনের আবেদন মঞ্জুর হওয়ার সুসংবাদ এসেছে, তবু গত ২৩ মার্চ র‌্যাবের গুলিতে আহত ও পঙ্গু হয়ে যাওয়া কলেজছাত্র লিমনকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতাল থেকে চিকিৎসাধীন অবস্থায়ই রিলিজ করে নিয়ে বরিশালের ঝালকাঠিতে কারাগারে প্রেরণ, আদালতে বিচারের জন্য তোলা, জেলখানা ও হাসপাতালে কর্তিত পা ১৬ বছরের ‘সন্ত্রাসী’ লিমনকে নিয়ে টানাহেঁচড়ার যে নাটক গত এক মাসের বেশি সময় ধরে অনুষ্ঠিত হয়ে চলেছে, তা নূ্যনতম মানবিকতাবোধসম্পন্ন আমাদের মতো সাধারণ নাগরিকদের পক্ষে সহ্য করা সত্যিই কঠিন হয়ে দাঁড়াচ্ছে। বরিশালের ঝালকাঠির রাজাপুরের এক ১৬ বছরের দরিদ্র কিন্তু মেধাবী কিশোর লিমন যে কি-না কখনও গরু চরিয়ে আবার কখনও ইটভাটায় কাজ করে এসএসসি পাস করে কলেজে ভর্তি হয়েছিল; চেয়েছিল ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষা দেবে… তাকে ভুল তথ্যের ভিত্তিতে শুধু লাল জামা পরা দেখে ‘র‌্যাবে’র অফিসাররা গ্রামবাসীর সাক্ষ্যের বিপরীতে গিয়ে পায়ে গুলি করেছে। ২৫ মার্চ রাতে লিমনকে ঢাকায় জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানে (পঙ্গু হাসপাতাল) ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের চিকিৎসকরা ওর বাঁ হাঁটুর নিচের অংশ কেটে ফেললেন। সেখানেই শেষ হলো না নিষ্ঠুরতা। যে লিমনের ব্যাপারে র‌্যাবের মহাপরিচালক শেষ পর্যন্ত স্বীকার করতে বাধ্য হলেন যে, এই লিমন (বিস্তারিত…)

ভবের এই নাট্য মঞ্চে হচ্ছে নাটক মঞ্চস্থ ! যে নাটকের স্বীকার হয়ে, লিমনের…অশ্রু ঝরছে অজশ্র ! ভেবে দেখুন কোন একদিন আপনিও হতে পারেন এমনি একজন! তাই বলি ভাই….আসুন সবাই….১৩ তারিখ সকাল ১১.০০টায় জাতীয় জাদুঘরের সামনে, হাতে হাত ধরি প্রতিবাদ করি….লিমনের জন্য, নিজের জন্য সর্বপরী সবার বাঁচার জন্য।

২৩ মার্চ বিকেলে ঝালকাঠির রাজাপুরে কলেজছাত্র নিরাপরাধ লিমন র‌্যাবের গুলিতে আহত হয়। এ সময় তাকে আটকের পর ওই দিনই তার বিরুদ্ধে ২টি মিথ্যা মামলা দায়ের করে র‌্যাব। এরপর আহত অবস্থায় ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে লিমনের বাম পা কেটে ফেলা হয়। লিমন এতোদিন পুলিশ পাহারায় পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল। সরকারি কাজে বাধাদানের অভিযোগে র‌্যাবের দায়ের করা একটি মামলায় লিমন গত ২রা মে সোমবার জামিন লাভ করে। আরেকটি মামলা হলো অস্ত্র আইনে। এই মামলাটিতে পুলিশ তড়িঘড়ি করে গত ২৪ এপ্রিল লিমনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করে। অথচ লিমনের ঘটনায় গঠিত ৬টি তদন্ত কমিটির এখন পর্যন্ত কোনটিই তাদের পুর্নাঙ্গ তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ করেননি। এমনকি র‌্যাবের মহাপরিচালক নিজেই বলেছেন লিমন অপরাধী নয়, ঘটনার স্বীকার। এতো কিছুর পরেও কিভাবে পুলিশ (বিস্তারিত…)